আপনার স্বাস্থ্য

ডাঃ হেলাল কামালি

হরমোন ( তৃতীয় পর্ব ) প্রোলেক্টিন হরমোন বা ভালবাসা বৃদ্ধি কারক হরমোন

232224 Votes

 

horm 01

হরমোন ( তৃতীয় পর্ব ) প্রোলেক্টিন হরমোন বা মিল্ক হরমোন এবং অক্সিটোসিন হরমোন বা ভালবাসা বৃদ্ধি কারক হরমোন ( ডাঃ হেলাল কামালি ) মনে রাখবেন যে মায়েরা সন্তান কে বুকের দুধ দিতে চান না তাহাদের সন্তানের প্রতি ভালবাসা বা মায়া একটু কম থাকবেই , সাধারণ বুকের দুধ খাওানো মায়ের সন্তানের চাইতে ।  কিভাবে ? তার প্রমান নিচে আছে !!! – Suportd & Reference from:- Dr Domingoঃ- University Hospitals Bristol NHS Trust / England: Society for Endocrinology/ Professor David Ray, University of Manchester / Department of Endocrinology, Bangladesh Institute of Research & Rehabilitation – Ibrahim Medical College – Alternatives to Human Growth Hormone HGH–


হরমোন নিয়ে স্বাভাবিক সকলের যেমন কৌতূহলের শেষ নাই তেমনি চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের ও অনেক চেস্টার অন্ত নাই বা আর অনেক অজানা তথ্য বাহির হবেই বা হইতেছে ) নিচে বিশেষ গুরুত্ব পূর্ণ কিছু হরমোন নিয়ে সঙ্কেপে জানানোর চেস্টা করলাম ।
হরমোন ভ্রুন থেকে একদম মৃত্যু পর্যন্ত মানুষের শারিরীক এবং জৈবিক কাজ গুলো নিয়ন্ত্রন করে। মানুষের জীবনের প্রটিতি ধাপে এক একটি হরমোন কাজ করে। এগুলোর মধ্যে একটির ও এদিক ও দিক হলে মানুষের স্বাভাবিক ক্রিয়াকলাপ যেমন ব্যহত হয় তেমনি এর অধিকতায় দেখা দেয় অনেক অস্বাবিকত্ব। তবে স্থায়ী ভাবে হরমোন জনিত ঘটতি হলে সারা জীবন বাহির থেকেই হরমোন প্রয়োগ করে চলতে হবে কথাটি ভুলে গেলে চলবেনা ।
Human Grouth hormone (H. G.H ) বা গ্রোথ হরমোন বা বৃদ্ধি পোষক হরমোন নিয়ে গত পর্বে সামান্য কিছু টা ধারণা দেওয়া হয়েছিল । আজকের পর্বে GTH ( Gonadotropic hormones/ জনন গ্রন্থির ( শুক্রাশয় ও ডিম্বাশয়) বৃদ্ধি ও কার্যকারিতা নিয়ন্ত্রক ) হরমোন নিয়ে কিছু সামান্য ধারণা দেওয়ার চেস্টা করব যাদের কে কেউ কেউ এমনিতে সেক্ষ হরমোন বলে থাকেন । এর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হরমোন সমুহ ঃ- L.T.H. বা লিউটোট্রফিক হরমোন বা প্রোল্যাকটিন –L.H. বা লিউটিনাইজিং হরমোন-I.C.S.H. ইন্টারস্টিশিয়াল সেল স্টিমুলেটিং হরমোন-F.S.H. বা ফলিকল স্টিমুলেটিং হরমোন- G.T.H. বা গোনাডোট্রফিক হরমোন- প্রজেস্টেরন হরমোন – ইস্ট্রেজেন হরমোন- hCG (মানুষের কোরিওনিক গোনাড্রোট্রোপিন) — টেস্টেস্টেরন হরমোন — হরমোন বিশেষ ভাবে উল্লেখ যোগ্য এবং আমার দৃঢ় বিশ্বাস এই সব হরমোন সম্মন্ধে সামান্য অল্প ধারণা থাকলে জীবন যৌবন নিয়ে যে কৌতুহল আছে বা অনেক ভুল ধারণা আছে সকলের বেলায় তা চলে যাবে ।

 

L.T.H. বা লিউটোট্রফিক হরমোন বা প্রোল্যাকটিন ঃ
LTH হরমোন পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত হয় । LTH হরমোনের কাজ হল :- মাতৃদেহে স্তনদুগ্ধ ক্ষরণে সহায়তা করে । ( Discovered in non-human animals around 1930 by Oscar Riddle ) –

 
কিভাবে তৈরি হয় মায়ের বুকের দুধ?
দুধ উৎপাদন করার জন্য, যে হরমোন সমুহের প্রয়োজন হয় তার মধ্যে দুটি প্রধান হরমোন হল Prolactin এবং oxytocin হরমোন ।
মাতৃগর্ভে ভ্রূণ সঞ্চারিত হবার সাথে সাথে জরায়ুতে শিশুর বৃদ্ধির সাথে সাথে মস্তিষ্ক ও দেহের অন্যান্য গ্রন্থি থেকে বিশেষ করে পিটিইটারি গ্রন্থি থেকে অক্সিটোসিন, প্রোলেক্টিন এবং এড্রিনাল গ্রন্থির সকল রস সমূহ তৈরি হতে থাকে যা সন্তান প্রসবের সাথে সাথে জরায়ুর প্লেসেন্টার নিঃসৃত হরমোনের প্রভাবে স্তনে দুধ তৈরির প্রক্রিয়া চলতে থাকে। স্তনের কোষগুলো বাড়তে থাকে এবং মুলত এই কোষেই দুধ তৈরি হয়। সে সময় মায়ের দুধ বাহির হওয়ার জন্য প্রোলেক্টিন এবং অক্সিটোসিন হরমোন বিশেষ ভুমিকা রাখে । এবারে মায়ের দুধ বৃদ্ধিকারক দুটি হরমোন অন্যান্য কি কি কাজ করে জেনে নিন –

 
প্রোলেক্টিন হরমোন ঃ-

ইহার আরেক নাম মিল্ক হরমোন । যার মুল কাজ হল বাচ্চা জন্মের সাথে সাথে মায়ের দুধ কে বাহির করতে সহায়তা করা । ইহা শরীরের প্রায় ৩০০ ধরণের কাজে সহায়তা করে থাকে তার মধ্যে জন্ম নিয়ন্ত্রণ, হজম শক্তি, ফ্লুয়িডের ভারসাম্মতা রক্কা করা , (osmoregulation), এবং চারিত্রিক আচরণ ও রোগ প্রতিরোধে বিশেষ অবধান রাখে । মুলত মানব দেহে শুধু মাত্র মহিলাদের জরায়ু, ব্রেইন, প্রোস্টেট, এবং কোন কোন সময় চামড়ার টিস্যু সমুহে উৎপাদিত হয়ে থাকে, সেই সাথে মস্থিস্কের হাইপোথ্যালামাসে ডোপামিন , ও ইস্ট্রোজেন হরমোন মায়ের দুধের নিঃসরণ কে বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে । কোন কোন সময় মুত্র বৃদ্ধি কারক হরমোন কে সহায়তা করতে দেখা যায় –
যাই হউক প্রলেক্টিন মায়ের দুধ উৎপাদনের সবচেয়ে প্রথম ও প্রধান একটি দুধ উৎপাদন কারী হরমোন বলতে পারেন যা প্রথমেই মায়ের স্থনের Alveoli সমুহের প্রসারণে সাহায্য করে বিধায় শিশু জন্মের পর পর ই মায়ার দুধ পেয়ে থাকে । অর্থাৎ প্রলেক্টিন ইনসুলিন এবং করটিসল হরমোনের সাথে স্টিমুলেটিং করে করটিসল কে নামিয়ে বাচ্চা প্রসবের পর পর ই দুধ উৎপাদন করার জন্য চলে আসে এবং এর কারণে মায়েদের মাসিক এবং নতুন করে ডিম্ব পরিস্পুটন বন্ধ থাকে । সম্প্রতি প্রমান অনুসারে বিজ্ঞানিরা বেশ মজা করেছেন – যদি কোন পুরুষ চায় বুকের দুধ বাড়াতে তা হলে কৃত্রিম উপায়ে প্রলেক্টিন বাড়িয়ে পুরুষের বুকে দুধ উৎপাদন করা সম্বভ । ( প্রমান করা হয়েছে, ল্যাব রিসার্চ তথ্য )

 
অক্সিটোসিন হরমোন ঃ-

( এর আরেক নাম ভালবাসার হরমোন ) ঃ-এই হরমোন টি তৈরি হয় মস্থিস্কের হাইপ থ্যালামাস অঞ্ছলে এবং নিঃসরিত হয় প্রস্টেরিয়র পিটিইটারি গ্রন্থি থেকে । ( Oxytoc is a mammalian neurohypophysial hormone ) যা প্রসুতি মা সন্তান প্রসব করার সময় প্রচুর পরিমাণে নিঃসরিত হয়ে মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি তে সবচেয়ে বেশী সহায়তা করে । অনেক সময় এর স্বল্পতায় মায়ের বুকের দুধ নব্জাতক সন্তান দুধ পেতে দেরি হয় । এ ছাড়া ও এই হরমোন টি বাচ্চা প্রসব হওয়ার পর জরায়ুর সংকোচন প্রসারন বৃদ্ধি করে প্লেসেন্টা কে খুভি তাড়া তাড়ি বাহির করে জরায়ুর রক্তপাত বন্ধ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে । সে জন্য অনেক সময় চিকিৎসকরা গর্ভবতীর সন্তান প্রসবের সময় জরায়ুকে সঙ্কুচিত করার জন্য এই ড্রাগটির ব্যবহার করেন বা সন্তান প্রসবের পর এই ইনজেকশান প্রয়োগ করলে- মায়ের দুধের আধিক্য দেখা দেয় ( C43H66N12S2 ) trade names Pitocin and Syntocinon –
– ( বিদ্রঃঃ- অক্সিটোসিনের পার্সপ্রতিক্রিয়া ঃ- কোন অবস্থাতেই গর্ভবতী মায়েরা ব্যাবহার করতে পারবেন না , কেন না মুলত এই ঔষধ টি প্রসবের ব্যাথা বৃদ্ধির জন্য তৃতীয় স্টেপে চিকিৎসকরা ব্যাবহার করেন আর তখন জরায়ুকে সংকোচন প্রসারন করে মায়ের বুকের দুধ ব্রিদ্দিতে ১০০% কার্যকর একটি ঔষধ । তা ছাড়া এই ঔষধের ব্যাবহারে যা হতে পারে- Increased heart rateDecreased blood pressure, Cardiac arrhythmia and premature ventricular contraction,Impaired uterine blood flow,Pelvic hematoma,Afibrinogenonemia, which can lead to hemorrhage and death,Anaphylaxis,Nausea and vomiting,Increase fetal blood flow, Cardiac arrhythmia, Brain damage ইত্যাদি )

 
অক্সিটোসিন হরমোন নিয়ে সর্বশেষ তথ্য ঃ-
সম্প্রতি অক্সিটোসিন নিয়ে যে তথ্য বিজ্ঞানীরা এবং বায়োইঞ্জিনিয়ার রা দিয়েছেন তার সবটুকুই সত্য এবং প্রমাণিত । তার বাস্থব উদাহারন দেখানো হয়েছে , প্রকৃতির নিয়মে সন্তান প্রসবের সময় যে অক্সিটোসিন নিঃসরণ হয় ( ফলে স্থনে খুভ সহজে দুধ আসে ) বা এও দেখানো হয়েছে সে কারণে সে সময় মায়েরা তার সন্তানের প্রতি আকর্ষণ বা ভালবাসা ও বেশী অনুভব করেন । আবার নবাগত শিশু যতই স্থনের দুধ চুশতে থাকে ঠিক তথই মায়ের আদর আর বেড়ে যায় এবং সেই সাথে মায়ের জরায়ুর ভিতর প্রচুর অক্সিটোসিন নিসরনের ফলে সেখানের রক্তপাত খুভ তাড়া তাড়ি বন্ধ হয়ে যায় ( যদি শারীরিক মারাত্মক অন্যান্য কোন অসুখ না থাকে ) । এই দৃষ্টি ভঙ্গীর উপর বিজ্ঞানীরা জরিপ চালিয়ে বেশ মজার কৌতূহল তৈরি করেছেন যার অন্য নাম বন্ধন হরমোন বলতে পারেন । যেমন ঃ —
পরীক্ষায় দেখানো হয়েছে , অক্সিটসিন যাদের কম তাদের আবেগ জাতীয় ভালবাসা খুভি কম বা অন্য দিকে বাহির থেকে অক্সিটোসিন প্রয়োগ করে দেখানো হয়েছে উক্ত মানুষের ভালবাসার আগ্রহ প্রবল ভাবে বেড়ে যায় ইত্যাদি । ( আমার মনে হয় যে প্রেমিক প্রেমিকা বা স্বামী শ্রী বিয়ের আগে ঠিক যত টুকু একে অন্যকে ভালবাসেন এবং বিয়ের কিছু দিন পর , যে কোন একজন যদি সন্দেহ করেন যে তাকে কম ভালবাসেন ? তাহলে তাবিজ কবজ না করে সুজাসুজি অক্সিটসিন স্প্রে কিনে এনে, যিনি কম ভালবাসেন তাকে ব্যাবহার করতে দিলে, কয়েক দিনের ভিতর দেখবেন আপনার প্রতি ভালবাসা বেড়ে গেছে , কারন এই হরমোন বৃদ্ধির ফলে মনের আকর্ষণ শক্তি বেড়ে যায় ( প্রমাণিত ) বা ভালবাসা জাতীয় আবেগ বৃদ্ধি পায় । তবে সাবধান এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কিন্তু খুভি মারাত্মক সে জন্য নিজের হাউজ ফিজিশিয়ানের পরামশে ব্যাবহার করে দেখতে পারেন কিন্তু কোন অবস্থায় একে হ্যালিপনা বা রঙ তামশায় নিবেন না কারন রিতিমত ইহা এক ধরণের বিষাক্ত কেমিক্যাল ড্রাগস ।
আমরা জানি যদি কোন মানুষ প্রেম বা আকর্ষণ জাতীয় কিছুতে দাবিত হলে মস্তিষ্ক হতে ডোপামিন নামের হরমোন বেশী নিরগত হয় (নিউরোট্রান্সমিটার) নির্গত হয় , যার কারণে প্রেম বা ঐ জাতীয় কিছুতে আমরা সুখ অনুভূব করি ঠিক সে সময় যদি অক্সিটোসিন এসে যোগ দেয় তা হলে সেই সুখ ও আরাম অনুভূতি আর দীর্ঘ স্থায়িত্ব লাভ করে বা একজন আরেকজনের প্রতি প্রবল বিশ্বাস , শান্তি ও নিরাপত্তা বোধ করেন বা ভালবাসার মাত্রা কে বাড়িয়ে দেয় । সে সময় করটিসল বা স্ট্রেস হরমোনের নিঃসরণ কমিয়ে দেয় অক্সিটোসিন , তখন প্রেম বা ভালবাসা জাতীয় বিষয় কে দীর্ঘস্থায়ী করতে খুভি ভাল সাহায্য করে ( প্রমাণিত রিসার্চ ল্যাব ) ।
যৌন সম্পর্ক স্থাপনের আগে যদি কেউ অক্সিটোসিন ব্যবহার করেন, তাহলে তাঁদের যৌন ক্রিয়াকর্ম অনেক বেশি রোমাঞ্চকর হয়। মূলত পুরুষরাই এই হরমন ব্যবহার করেন। তবে বেশ কিছু মহিলাও ব্যবহার করেছেন যৌন জীবনে তৃপ্তি আনে, এই লাভ হরমন। দেখা যাচ্ছে এই লাভ হরমোন শারীরিক সম্পর্কের পর যুগলকে অনেক বেশি মানসিক তৃপ্তি দেয়। মহিলারা যাঁরা এটা ব্যবহার করেছেন তাঁদের দাবি, যৌন কর্মের সময় নিজেদের ইচ্ছেকে অনেক বেশি ভালভাবে সঙ্গীর কাছে মেলে ধরতে পেরেছেন তাঁরা। সেক্সে তৃপ্তি দেয় এই হরমোন তা তো বোঝাই গেছে। এখন গবেষণা চলছে যাতে এই লাভ হরমোন ব্যবহার করা যায় যৌন খিদে বাড়ানোর জন্য। যাদের সেক্সুয়াল চাহিদা কম বা শীঘ্র পতনের শিকার যারা। এ ছাড়া ও এই হরমোন সাধারণভাবে মস্তিষ্কের যেসব অংশ সামাজিক ভাবনা, চিন্তা ও বোধ নিয়ন্ত্রণ করে, এএসডি আক্রান্তদের ক্ষেত্রে সেসব এলাকার সক্রিয়তা বাড়িয়ে তুলবে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা – ( অক্সিটোসিন-OXTR )
ইংরেজিতে যাহারা জানতে আগ্রহি নিম্নের লিঙ্কে ক্লিক করুনhttp://www.oxytocin.org/cuddle-hormone/review.html )
তাহলে বুজতেই পেরেছেন একজন মা যখন তার সন্তান কে যত বেশী বুকের দুধ খাওয়াবেন ঠিক তথ বেশী লাভ হরমোন নিঃসরণ হবে ( অক্সিটোসিন ) অর্থাৎ তার সন্তানের প্রতি বেশী ভালবাসা বেশী থাকবেই , স্বাভাবিক বুকের দুধ থেকে বঞ্চিত শিশুদের চাইতে ( প্রমাণিত ) সে জন্য আইন প্রয়োগ করে মায়েদের কে বুকের দুধ খাওানোর চাপ দেওয়া প্রয়োজন নেই । কেন না উক্ত শিশু টি যখন বড় হবে তখন মা নিজেই বুজতে পারবেন তার কি ভুল হয়েছিল ( ধন্যবাদ )
এবারে আসি মায়ের দুধের Colostrum বা শাল দুধ নিয়ে কিছু তথ্য বা ইহা কি ? কি ভাবে তৈরি হয় ইত্যাদি বা এর কেমন প্রয়োজনীয়তা ইত্যাদি নিয়ে —

হরমোন ( তৃতীয় পর্ব )

Leave a Reply

 

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

সাম্প্রতিক পোস্ট সমূহ

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

shaharparabd on ঘুম – ১ম পর্ব

ক্যাটাগরি

সাম্প্রতিক পোস্ট সমূহ

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

shaharparabd on ঘুম – ১ম পর্ব

ক্যাটাগরি

সাম্প্রতিক পোস্ট সমূহ

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

shaharparabd on ঘুম – ১ম পর্ব

ক্যাটাগরি

আপনার অভিমত

shaharparabd on ঘুম – ১ম পর্ব

আর্কাইভ

স্বাস্থ্য

%d bloggers like this: